নিউজ ডেস্ক

যুবদল নেতা মাসুম ও জুয়েলকে বানোয়াট মামলায় গ্রেপ্তারের নিন্দা

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: চান্দগাঁও থানা যুবদলের যুগ্ম-আহবায়ক আলী আজম মাসুম ও সদস্য সালাহউদ্দিন জুয়েলকে মিথ্যা ও বানোয়াট মামলায় গ্রেপ্তারের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন যুবদলের কেন্দীয় কমিটির সহ-সভাপতি ও চট্টগ্রাম মহানগর যুবদলের সভাপতি মোশাররফ হোসেন দীপ্তি, কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি (চট্টগ্রাম বিভাগ) ও চট্টগ্রাম মহানগর যুবদলের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ শাহেদ।

এক যৌথ বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন সারা বিশ্ব যখন বাংলাদেশে গণতান্ত্রিক রাজনীতি চর্চার হুইসেল বাজিয়ে সতর্কবার্তা প্রচার করে যাচ্ছে তখন বাকশালী পুলিশ মিথ্যা মামলা দিয়ে গ্রেফতার ও হয়রানী করছে। নেতৃদ্বয় আরো বলেন সরকারের সীমাহীন দুর্নীতি, লুন্ঠন, স্বেচ্ছাচারিতা, শোষণ-বঞ্চনার প্রতিবাদে এবং বাংলাদেশের জনগণের ভোটাধিকার হরণকারী বর্তমান কর্তৃত্ববাদী অবৈধ সরকারের পদত্যাগ-এটাই এক দফা, এক দাবি। কিন্তু কেন বিএনপি এবার নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের বদলে সরকারের পদত্যাগে বেশি গুরুত্ব দিল কিংবা দলটি কি তাদের মূল দাবি কিছুটা পরিবর্তন করল কি-না এসব প্রশ্নও উঠছে রাজনৈতিক অঙ্গনে।

নেতৃবৃন্দ আরোও বলেন, আওয়ামীলীগ এখন নেতাকর্মীদের রাতের অন্ধকারে গ্রেফতার এবং মিথ্যা বানোয়াট মামলা দিয়ে হয়রানি করছে। ইতিহাস বলে নির্যাতন করে কোনো সরকারই টিকে থাকতে পারেনি। বল প্রয়োগ করে বা জোর জুলুম করে কিংবা নির্যাতন করে কখনও কেউ ক্ষমতায় টিকে থাকতে পারেনি, পারবেও না। অতীত ইতিহাস তারই সাক্ষ্য দেয়। ক্ষমতায় টিকে থাকাটাই মুখ্য বিষয় নয়। দেশে শান্তি শৃঙ্খলা, সর্বক্ষেত্রে অগ্রগতি, সবার জন্য সমান সুযোগ এবং ন্যায় বিচার নিশ্চিত করাই রাজনীতিবিদদের প্রধান কর্তব্য। প্রত্যেকটি রাজনৈতিক দল এবং দেশের জনগণের প্রধান সমস্যা হচ্ছে- দেশে গণতন্ত্র এবং গণতান্ত্রিক আচরণ সম্পূর্ণ অনুপস্থিত।

নেতৃদ্বয় বলেন, আমরা খুব পরিষ্কার করে বলতে চাই নিরপেক্ষ সরকার প্রতিষ্ঠা করে একটা নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানের পরিবেশ করে দিতে হবে। আওয়ামী লীগ একটি গণতন্ত্র বিরোধী শক্তি। সন্ত্রাসী শক্তি, তারা দেশের মানুষের অধিকার হরণকারী শক্তি। আওয়ামী লীগ অতীতেও একদলীয় শাসনব্যবস্থা বাকশাল প্রতিষ্ঠা করেছিল এখনো তারা একই উদ্দেশ্যে একদলীয় বাকশাল প্রতিষ্ঠা করতে চায়।

মন্তব্য করুন