নিউজ ডেস্ক

দীর্ঘ এক দশক পর নগর ছাত্রলীগের নতুন কমিটি!

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: দীর্ঘ এক দশক পর নগর ছাত্রলীগের নতুন কমিটি গঠনের উদ্যোগ নিয়েছে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। শীর্ষ পদ প্রত্যাশীদের শিগগিরই বায়োডাটা আহ্বান করতে যাচ্ছে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। দীর্ঘ এক দশক পর নগর ছাত্র লীগের নতুন কমিটি গঠনে আবার তৃণমূল পর্যায়ে ছড়িয়ে পড়ায় নেতাকর্মীদের মাঝে উচ্ছ্বাস বিরাজ করছে। চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের এক দশক পুরোনো কমিটি অবশেষে ভাঙার তোড়জোড় শুরু হয়েছে। ইতোমধ্যে নতুন কমিটির জন্য জীবনবৃত্তান্তও চাওয়া হয়েছে নেতাকর্মীদের কাছে। তবে আগের কমিটিগুলো এমইএস কলেজ ও সিটি কলেজকেন্দ্রিক হলেও এবারের কমিটির ক্ষেত্রে ‘পরিবর্তন’ আনতে চায় কেন্দ্র। চেনাবৃত্তের বাইরে থেকে বড় পদ বাগিয়ে নিতে পারেন অন্যান্য কলেজের নেতাকর্মীরা এমনটাই শোনা যাচ্ছে। তবে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে শিগগির কমিটি দেওয়ার যে ঘোষণা, তা বাস্তবায়ন হবে কিনা সেটি নিয়ে কিছু শঙ্কায়ও আছে চট্টগ্রামের নেতাকর্মীরা। এর আগে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ এবং চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (চুয়েট) কমিটির জন্য জীবনবৃত্তান্ত চাওয়া হলেও পরে আর কমিটি ঘোষণা হয়নি। এর আগে বৃহস্পতিবার (১ ফেব্রুয়ারি) চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের কমিটি গঠনের জন্য পদপ্রত্যাশীদের কাছ থেকে জীবনবৃত্তান্ত চেয়ে বিজ্ঞপ্তি দেয় কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। এরপর থেকে চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগ কমিটি ভাঙনের কথা বেশিই শোনা যাচ্ছে। ২০১৩ সালের ২৯ অক্টোবর সরকারি সিটি কলেজের ইমরান আহমেদ ইমুকে সভাপতি এবং ওমরগণি এমইএস কলেজের নূরুল আজিম রনিকে সাধারণ সম্পাদক করে চট্টগ্রাম মহানগরের আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয়। এদিকে বিংশ শতাব্দীর পর সবেমাত্র তিনটি কমিটি পেয়েছে চট্টগ্রাম নগর ছাত্রলীগ। এরমধ্যে একটি স্টিয়ারিং কমিটি ও বাকি দুটি পূর্ণাঙ্গ। সেই ২৩ বছরের হিসেবে দেখা গেছে, পদগুলোর মধ্যে বেশিরভাগ কমিটির প্রধান পদগুলো ভাগাভাগি হয়েছে চট্টগ্রাম শহরের রাজনীতির আতুঁড়ঘর নামে খ্যাত ওমরগণি এমইএস কলেজ এবং সরকারি সিটি কলেজের নেতাকর্মীরা। তবে এই নতুন কমিটির বেলায় সেই চিরচারিত নীতি ভাঙার একটা সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। বর্তমানে দুই কলেজের বাইরে তৈরি হয়েছে নেতৃত্বযোগ্য নেতা। তাই গ্রুপ লিডাররাও দুই কলেজের বাইরে গিয়ে নতুন চিন্তা করছেন এমনটাই চর্চা হচ্ছে রাজনীতিপাড়ায়। সেই নেতৃত্বের দৌড়ে এগিয়ে আছে চট্টগ্রাম কলেজ, ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ, হাজী মুহাম্মদ মহসিন কলেজ ও সরকারি কমার্স কলেজ ছাত্রলীগের নেতারা। নতুন নগর ছাত্রলীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের দৌঁড়ে এমইএস ও সিটি কলেজকে হারিয়ে এবার হয়তো নতুন ইতিহাস লেখা হতে পারে। নগর ছাত্রলীগের নতুন কমিটির জন্য বিশেষ করে সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক সহ শীর্ষ পদ প্রত্যাশীরা সাবেক ছাত্রলীগ নেতাদের বিভিন্ন গ্রুপ উপগ্রুপের মাধ্যমে তদবির করছেন। এবার নগর ছাত্রলীগের পদ প্রত্যাশিদের কাছ থেকে আহ্বান করা হবে বলে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের শীর্ষ নেতারা জানিয়েছেন।

নির্বাচনের পর পরই মহানগর ছাত্রলীগের কমিটি গঠন নিয়ে জোর আলোচনা শুরু হয়েছে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দের কাছে। শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল গ্রুপ মহানগর ছাত্রলীগের শীর্ষ পদে সম্ভাব্য প্রার্থী যারা চট্টগ্রাম কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি মাহমুদুল করিম, হালিশহর থানা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক আবদুর রহিম জিসান, সিটি কলেজ ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক আকবর খান, পতেঙ্গা থানা ছাত্রলীগের সভাপতি হাসান হাবীব সেতু, ডবলমুরিং থানা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাকিব হায়দার, চান্দগাঁও থানা ছাত্রলীগের যুগ্ম সম্পাদক তৌহিদুল আলম বাবু, মহানগর ছাত্রলীগের সদস্য আরাফাত রুবেল, মোশাররফ চৌধুরী পাভেল, ইসলামিয়া কলেজ ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি কাজী মো. আসিফ আলভী, কমার্স ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আরিফুল আলম আলভী, সিটি কলেজ নৈশ শাখার ছাত্রলীগের আহ্বায়ক আশীষ সরকার নয়ন, ভিপি মো. তাসিন, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ.জ.ম নাছির উদ্দীন গ্রুপ বাকলিয়া সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ও নগর ছাত্রলীগের উপসম্পাদক রাশেদ চৌধুরী এবং নগর ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক শৈবাল দাশ, উপসম্পাদক ইমরান আলী মাসুদ, নাছির উদ্দিন কুতুবী, হুমায়ুন কবির আজাদ, ওসমান গনি, ফাহাদ আনিস ও কোতোয়ালী থানা ছাত্রলীগের সভাপতি অনিন্দ্য দেব, মহানগর বঙ্গবন্ধু ছাত্র পরিষদের সাবেক আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক শামীমুর রহমান।

প্রসঙ্গত, কেন্দ্র থেকে ২০১৩ সালের ২৯ অক্টোবর ইমরান আহমেদ ইমুকে সভাপতি ও নুরুল আজিম রনিকে সাধারণ সম্পাদক করে ২৪ জনের আংশিক কমিটি দেওয়া হয়। এরপর ২০১৪ সালের ১১ জুলাই ওই ২৪ জনসহ ২৯১ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ নগর ছাত্রলীগের কমিটির অনুমোদন দেয় কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। বিভিন্ন ঘটনায় আলোচিত-সমালোচিত হওয়ার পর ২০১৮ সালের ১৯ এপ্রিল ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে পদত্যাগ করেন নুরুল আজিম রনি। তাঁর স্থলাভিষিক্ত হন কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাকারিয়া দস্তগীর। পরবর্তীতে তাকেও ভারমুক্তও করা হয়। এক বছর মেয়াদের ওই কমিটি ইতোমধ্যে দশ বছর পার করেছে।

মন্তব্য করুন