নিউজ ডেস্ক

বন্দরে স্ত্রীকে হত্যার পর লাশ ঝুলিয়ে রেখেছে স্বামী

জাহাঙ্গীর শিকদারঃ

আফসানা(২০) নামে এক গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যার পর লাশ ঝুলিয়ে রাখার অভিযোগ স্বামীর বিরুদ্ধে। বৃহস্পতিবার রাতে নারায়ণগঞ্জ জেলার সোনারগাঁও উপজেলার মদনপুর নেহাল সরদারের বাগ ভাড়াটিয়া বাড়িতে এ হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটে। এ হত্যাকান্ডের ঘটনায় স্বামী মো. অনিক মিয়াকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। নিহত গৃহবধূ পাশ্ববর্তী নারায়ণগঞ্জ জেলার সোনারগাঁও উপজেলার কাঁচপুর রাগারটেক গ্রামের জুলফিকার আলীর মেয়ে।

নিহতের বিমাতা ভাই খাইরুল ইসলাম জানান, মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার রামারফুর গ্রামেী গিয়াসউদ্দিনের ছেলে অনিকের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে পালিয়ে দুই বছর আগে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে তারা বন্দরের লাউসার নেহাল সরদারের বাগ করিম মেম্বারের বাড়িতে ভাড়ায় বসবাস করতো। তাদের সংসারে ১০ মাসের আব্দুল্লাহ নামে একটি সন্তান রয়েছে। পারিবারিক কলহের বৃহস্পতিবার রাতে আমার ছোট বোন আফসানাকে পিটিয়ে শ্বাসরোধে হত্যার পর লাশ ঘরের আড়ার সঙ্গে ঝুলিয়ে রেখেছে তার স্বামী।
প্রতিবেশীরা জানান, বিয়ের পর দুই বছর যাবত একই বাসায় সুন্দর ভাবেই ঘর-সংসার চলছিল। খুঁটিনাটি ঘটনা নিয়ে প্রায়ই ঝগড়া ও মারামারি হতো। বৃহস্পতিবার রাতে পূর্বের ন্যায় নিয়মিত খাওয়া দাওয়া শেষে ঝগড়া হয়। এরপর রাত দেড় টার দিকে বাড়িওয়ালাকে অনিক ডেকে এনে দেখান তার স্ত্রী ফাঁসি দিয়েছে। এ খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে রাতেই লাশ উদ্ধার করে নিয়ে যায়।
ধামগড় পুলিশ ফাঁড়ির এসআই তৌহিদুজ্জামান জানান, প্রথমে আত্নহত্যা করে এক নারী ঝুলে রয়েছে। এখবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা গেছে গৃহবধূর শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। পরে সুরতহাল প্রস্তুত করে লাশ উদ্ধার করে মর্গে প্রেরন করা হয়েছে। এ ঘটনায় স্বামী অনিককে আটক করা হয়েছে।

মন্তব্য করুন