নিউজ ডেস্ক

চট্টগ্রামে খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবীতে বিএনপির সমাবেশ সফল করুন: ডা. শাহাদাত হোসেন

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সাবেক আহবায়ক ডা. শাহাদাত হোসেন বলেছেন, বেগম খালেদা জিয়া বাংলাদেশের অবিসংবাদিত নেত্রী। তিনি বাংলাদেশের গণতন্ত্র ও সার্বভৌমত্বের মূর্ত প্রতীক। আওয়ামীলীগের দেশবিরোধী ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদ করার কারণেই খালেদা জিয়াকে গৃহবন্দী করে রেখেছে সরকার। ৭৯ বছর বয়সি খালেদা জিয়ার মেডিকেল টিম জানিয়েছেন, তার বয়স এবং শারীরিক অবস্থা বিবেচনায় যে ধরনের চিকিৎসা হওয়া প্রয়োজন তা দেশে সম্ভব নয়। মেডিকেল বোর্ড ইতোমধ্যে একাধিকবার পরামর্শ দিয়েছেন যে, খালেদা জিয়া এখন জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে। ফলে খালেদা জিয়াকে বাঁচাতে হলে বিদেশে অ্যাডভান্সড সেন্টার এ নিয়ে চিকিৎসা দেওয়া জরুরি। কিন্তু সরকার বেগম খালেদা জিয়াকে সেই সুযোগ থেকে বঞ্চিত করছে। তাই সবাইকে দেশনেত্রীর মুক্তি আন্দোলনে জীবন বাজী রেখে ঝাপিয়ে পড়তে হবে। খালেদা জিয়ার মুক্তি ছাড়া বাংলাদেশের গণতন্ত্র মুক্তি সম্ভব না।
তিনি শনিবার বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবীতে চট্টগ্রাম মহানগর, উত্তর ও দক্ষিণ জেলা বিএনপির বিক্ষোভ সমাবেশ সফল করার আহবান জানান।
তিনি শুক্রবার (৫ জুলাই) বিকালে কদমতলী বায়তুশ শরফ এলাকায় আগামীকাল শনিবার বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবীতে চট্টগ্রাম মহানগর, উত্তর ও দক্ষিণ জেলা বিএনপির কেন্দ্র ঘোষিত বিক্ষোভ সমাবেশ সফল করার লক্ষে সাধারণ মানুষের সাথে গণসংযোগকালে এসব কথা বলেন।
এতে বক্তব্য রাখেন মহানগর বিএনপির সাবেক সদস্য সচিব আবুল হাশেম বক্কর।
এসময় ডা. শাহাদাত হোসেন বলেন, বেগম খালেদা জিয়াকে আওয়ামীলীগ সরকার দীর্ঘদিন ধরে রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে গৃহবন্দি করে রেখেছে। তিনি বাংলাদেশের মানুষের সাহসের বাতিঘর। বন্দি থাকা অবস্থায় সুচিকিৎসার অভাবে খালেদা জিয়ার অসুস্থতা আরও তীব্র হয়। আইনগতভাবে বারবার তার জামিনের আবেদন করা হলেও সরকারের হস্তক্ষেপে জামিন দেওয়া হয়নি। এই ডামি সরকার জনগণের দাবিকে অগ্রাহ্য করে একদলীয় কর্তৃত্ববাদী শাসন অব্যাহত রেখেছে।
আবুল হাশেম বক্কর বলেন, বেগম খালেদা জিয়ার উন্নত চিকিৎসার জন্য চিকিৎসকরা তাকে বিদেশে নিয়ে চিকিৎসা করানোর সুপারিশ করলেও, সরকার তাকে চিকিৎসার জন্য বিদেশে যেতে দেয়নি। ভোটের নামে প্রহসন নির্বিঘ্নে চালাতে সরকার বেগম খালেদা জিয়াকে রাজনীতি ও নির্বাচন থেকে দূরে রাখার জন্যই আটক করে রেখেছে। শুধু সরকারের প্রতিহিংসার কারণে বেগম খালেদা জিয়ার ওপর নির্মম, নিষ্ঠুর জুলুম নেমে এসেছে।
গণসংযোগকালে উপস্থিত ছিলেন মহানগর বিএনপির সাবেক সদস্য নিয়াজ মোহাম্মদ খান, মো. কামরুল ইসলাম, কোতোয়ালী থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব জাকির হোসেন, ডবলমুরিং থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক হাজী বাদশা মিয়া, মহানগর বিএনপি নেতা গাজী আইয়ুব আলী, আবুল হাশেম, মহানগর যুবদলের সহ সভাপতি মুজিবুর রহমান জঙ্গল, সাংগঠনিক সম্পাদক এমদাদুল হক বাদশা, সহ সাধারণ সম্পাদক তানভীর মল্লিক, মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সহ সাধারণ সম্পাদক আবদুল আহাদ রিপন, বিএনপি নেতা এম এ হালিম, মো. শাহজাহান, মাহবুব আলম, আবু তাহের, মহানগর ছাত্রদলের যুগ্ম আহবায়ক আরিফুর রহমান মিটু প্রমূখ।

মন্তব্য করুন