নিউজ ডেস্ক

নেতাকর্মীদের জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে প্রেরণে বিএনপির প্রতিবাদ

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: চট্টগ্রাম মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সি. যুগ্ম সম্পাদক আলী মর্তুজা খান, যুগ্ম সম্পাদক নুরুল আলম শিপু, কোতোয়ালী থানা যুবদলের সদস্য সচিব মো. হাসান, এনায়েত বাজার ওয়ার্ড যুবদল নেতা সাইফুল ইসলাম, কোতোয়ালী থানা ছাত্রদলের সি. যুগ্ম আহবায়ক মো. ফয়সাল, চান্দগাঁও থানা যুবদল নেতা আবদুস সাত্তার, মো. শাহাজান, এস এম আলমগীর, চান্দগাঁও ওয়ার্ড স্বেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম আহবায়ক রাসেল আহমেদ নগরীর কোতোয়ালী, চকবাজার ও চাঁন্দগাও থানার মিথ্যা ও গায়েবি মামলায় চট্টগ্রামের নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন আবেদন করলে আদালত জামিন নামঞ্জুর করে তাদেরকে কারাগারে প্রেরণ করায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন চট্টগ্রামের বিএনপি নেতৃবৃন্দ।

এধরনের গণহারে জামিন নামঞ্জুরের ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ বিবৃতি দিয়েছেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল্লাহ আল নোমান, মীর মোহাম্মদ নাসির উদ্দিন, বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবের রহমান শামীম, চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির আহবায়ক ডা. শাহাদাত হোসেন, সদস্য সচিব আবুল হাশেম বক্কর, দক্ষিণ জেলা বিএনপির আহবায়ক আবু সুফিয়ান, মহানগর যুবদলের সভাপতি মোশাররফ হোসেন দিপ্তী, সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ শাহেদ, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি এইচ এম রাশেদ খান, সাধারণ সম্পাদক বেলায়েত হোসেন বুলু, ছাত্রদলের আহবায়ক সাইফুল আলম ও সদস্য সচিব শরিফুল ইসলাম তুহিন।

বুধবার (৭ ফেব্রুয়ারী) এক বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, বিগত জাতীয় সংসদ নির্বাচন একতরফাভাবে করে রাষ্ট্রক্ষমতা নিষ্কণ্টক রাখার লক্ষ্যে বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতৃবৃন্দকে কারাগারে প্রেরণ করছে সরকার। বিএনপির নেতৃত্বে চলমান আন্দোলনে সাড়া দিয়ে জণগণ ভোট কেন্দ্রে না যাওয়ায় সরকার ভীত হয়ে পড়েছ। তাই তারা নির্যাতন চালিয়ে বিএনপির আন্দোলন দমন করার পায়তারা করছে। গ্রেফতার করে গোটা দেশকে কারাগারে পরিনত করেছে। দেশে আইনের শাসন ও মানবাধিকার বলে কিছু নেই। বিএনপি নেতাকর্মীদের পুরানো গায়েবি মামলাগুলো দ্রুত শেষ করা হচ্ছে। বিএনপিকে রাজনৈতিক ও আদর্শিকভাবে মোকাবেলা করতে ব্যর্থ হয়ে দমন পীড়নের পথ বেছে নিয়েছে। কিন্তু জুুলুম নির্যাতন চালিয়ে অতীতে কোন ফ্যাসিবাদী শক্তির শেষ রক্ষা হয়নি, আওয়ামীলীগেরও হবে না।

নেতৃবৃন্দ বলেন, বর্তমান অবৈধ সরকার দেশে একদলীয় বাকশালী শাসন কায়েম করে বিরোধী মত দমনের হিংসাত্মক রাজনীতিতে মেতে উঠেছে। ভুয়া রাজনৈতিক প্রতিহিংসামূলক মামলায় গ্রেফতার ও কারাগারে প্রেরণ আওয়ামী লীগের নিত্য নৈমত্তিক ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। কিন্তু অবৈধ সংসদ বাতিল করে জনগণের ভোটাধিকার আদায়ের আন্দোলনে বিএনপি প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। নেতাকর্মীদের ওপর যতই দমনের স্টিম রোলার চালানো হোক না কেন, চলমান গণ আন্দোলনের ঢেউকে বাধাগ্রস্ত করা যাবে না। তীব্রতর আন্দোলনের মাধ্যমেই এই ডামি সরকারকে নতুন নির্বাচনে বাধ্য করা হবে।

নেতৃবৃন্দ আলী মর্তুজা খান সহ ইতিপূর্বে চট্টগ্রামে কারাবন্দী নেতাকর্মীদের অবিলম্বে মুক্তি দিয়ে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবী জানান।

মন্তব্য করুন