নিউজ ডেস্ক

‘স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে তামাকের ব্যবহার থেকে বিরত থাকতে হবে’

নিউজগার্ডেন ডেস্ক: চট্টগ্রাম জেলা সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ ইলিয়াছ চৌধুরী বলেছেন, ধূমপান বা তামাকজাত পণ্য স্বাস্থ্যের জন্য খুবই ক্ষতিকর। তামাকের কারণে মানুষ একদিকে ক্যান্সারসহ মারাত্বক জঠিল রোগে আক্রান্ত হচ্ছে, অন্যদিকে কমে যাচ্ছে আয়ুস্কাল। এর পরও মানুষ সচেতন হয়না। ধূমপায়ীর কারণে অধূমপায়ীরা বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। জাতিকে সুস্থ-সবল রাখতে হলে অবশ্যই তামাক বর্জন করতে হবে। তামাক ও তামাক জাতীয় দ্রব্য থেকে বিরত থাকতে শুধু শিক্ষার্থী নয়, সমাজের সকল শ্রেণি-পেশার মানুষকে সচেতন করতে হবে। তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন, ২০০৫ বাস্তবায়নে সংশ্লিষ্ট সকলকে এগিয়ে আসতে হবে। জাতির পিতার সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আগামী ২০৪১ সালে স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে শিক্ষার্থী ও ভবিষ্যৎ প্রজন্মসহ সবাইকে তামাকের ব্যবহার থেকে বিরত থাকতে হবে। আমরা ধূমপান বর্জন করব ও অন্যকে বর্জন করতে উৎসাহিত করবো। আজ ১ জুন শনিবার সকাল ১১টায় চট্টগ্রাম জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত বিশ্ব তামাকমুক্ত দিবসের আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। দিবসটির এবারের প্রতিপাদ্য বিষয় ছিল ‘তামাক কোম্পানীর হস্তক্ষেপ প্রতিহত করি, শিশুদের সুরক্ষা নিশ্চিত করি’। ৩১ মে বিশ্ব তামাকমুক্ত দিবস হলেও সরকারী ছুটির কারণে ১ জুন শনিবার দিবসটি পালন করা হয়। দিবসটি উপলক্ষে আলোচনা সভার পূর্বে সিভিল সার্জনের নেতৃত্বে সর্বস্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নিয়ে একটি বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালিটি প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করেন।
সিভিল সার্জন বলেন, স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদেরকে পাঠদানের সময় তামাকের কুফল সম্পর্কে জানানোর পাশাপাশি এর বিরুদ্ধে সামাজিক আন্দোলন জোরদার করতে হবে। চট্টগ্রাম বিভাগে ১০ হাজার একর জমিতে তামাক চাষ হচ্ছে। তামাকজাত পণ্যের চাহিদা শূন্যের কোটায় নামিয়ে আনতে তামাক চাষীদেরকে বিকল্প হিসেবে খাদ্যশস্য উৎপাদনে আগ্রহী হতে হবে। তাহলে দেশ খাদ্যে স্বয়ং সম্পূর্ণ হবে।
চট্টগ্রাম জেলা সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ ইলিয়াছ চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও জেলা স্বাস্থ্য তত্ত্বাবধায়ক সুজন বড়–য়ার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত বিশ্ব তামাকমুক্ত দিবসের আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের বাকলিয়া সার্কেলের সহকারী কমিশনার (ভূমি) এ.এফ.এম শামীম। বক্তব্য রাখেন সিভিল সার্জন কার্যালয়ের এমওডিসি ডা. মোহাম্মদ নুরুল হায়দার ও সিনিয়র স্বাস্থ্য শিক্ষা কর্মকর্তা থোয়াইনু মং মারমা। সিভিল সার্জন কার্যালয়ের সর্বস্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারী র‌্যালি ও আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন।

মন্তব্য করুন